Science Olympiad 2014

সায়েন্স অলম্পিয়াডের শুভ বুদ্ধির খেলায়
নতুন প্রজন্মকে আগ্রহী করে তুলতে হবে

বিজ্ঞান মানে বিশেষ জ্ঞান। বিশ্বায়নের এই যুগে প্রতিনিয়ত বিশ্বকে পাল্টে দিচ্ছে এই বিজ্ঞান। বিজ্ঞানের ভয়কে জয় করে শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞানের প্রতি ভালোবাসা সৃষ্টি করতে আয়োজন করা হয়েছে বিজ্ঞান অলম্পিয়াড’১৪। গত ১৪ই মার্চ শুক্রবার বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমীর আয়োজনে আন্তর্জাতিক ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামের কুমিরাস্থ স্থায়ী ক্যাম্পাসে দিনব্যাপী এ অলম্পিয়াডের আয়োজন করা হয়।
বসন্তের সুন্দর সকালে আইআইইউসির পাহাড় ও সমুদ্র ¤œাত মনোরম পরিবেশে বিজ্ঞান অলম্পিয়াডে অংশ গ্রহণকারী প্রতিযোগী শিক্ষার্থীদের আনাগোনায় মুখরিত হয়ে উঠে ক্যাম্পাস। শুরুতে এ কেন্দ্রে চট্টগ্রামের স্বনামধন্য ২০টি কলেজ ও ৩৪টি উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪০৩ জন শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে দেওয়া মনোগ্রাম সম্বলিত টি-শার্ট, এবং ছাত্রীদের মাথার স্কার্ফসহ গিফটকিট গ্রহণ করে।
সকাল সাড়ে আটটায় পতাকা উত্তোলন, কোরআন তেলাওয়াত ও জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে শুরু হয় অনুষ্ঠান। বিশ্ববিদ্যালয়ের সায়েন্স অলম্পিয়াডের আহবায়ক ও আইআইইউসির স্থায়ী ক্যাম্পাসের চীফ প্রফেসর ড. দেলোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন আইআইইউসির ভাইস চ্যান্সেলর ও বাংলাদেশ একাডেমি অব সায়ন্সের বরিষ্ট ফেলো প্রফেসর ড. এ কে এম আজহারুল ইসলাম। আইআইইউসির ষ্টুডেন্ট অ্যাফেয়ার্স ডিভিশনের এডিশনাল ডিরেক্টর মামুনুর রশীদের সঞ্চলানায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সায়েন্স অলম্পিয়াডের সদস্য সচিব ও আইআইইউসির কম্পিউটার সায়ন্স বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শামশুল আলম ও সমকালের সিনিয়র রিপোর্টার তৌফিকুল ইসলাম বাবর।
আইআইইউসি ভিসি প্রফেসর এ কে এম আজহারুল ইসলাম বলেন, ‘১৯৭৩ সালে বাংলাদেশে সর্ব প্রথম ১২ জন সদস্য নিয়ে বিজ্ঞান একাডেমি প্রতিষ্ঠিত হয়। দেশে বিজ্ঞান শিক্ষাকে এগিয়ে নিতে প্রতিষ্ঠানটি ৪১ বছর ধরে কাজ করে যাচ্ছে। দিনদিন এর পরিধি বেড়েছে।’ তিনি বলেন, ‘বিজ্ঞানের প্রতি আগ্রহ সৃষ্টি ও মনযোগী করার লক্ষ্যে আজকের এই বিজ্ঞান অলম্পিয়াড। সায়েন্স অলম্পিয়াডকে তিনি বুদ্ধির খেলা উল্লেখ করেন এবং শুভ বুদ্ধির খেলায় তরুন প্রজন্মকে আরো গভীর ভাবে মনযোগী হওয়ার আহ্বান জানান। তিনি অনুষ্ঠানে আগত সবাইকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানিয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন।
অনুষ্ঠানে প্রফেসর ড. দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘বিজ্ঞানে তড়িৎ শক্তি, গতিশক্তির মতো আজকের বিজ্ঞান অলম্পিয়াডকে মেধা শক্তিতে রুপান্তর করে মেধাকে আরো শাণিত  করতে হবে।’
বিকালে পুরষ্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে আই আই ইউ সির প্রো-ভিসি প্রফেসর ড.আবু বকর রফিক শিক্ষার্থীদেরকে মেধার পাশাপাশি নিজের ব্যক্তিত্ব ও নৈতিকতাকে সমুন্নত করার আহবান জানান ।
অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের সহকারী অধ্যাপিকা শাহনাজ পারভীন।