Orientation Program – Autumn 2014 (Male)


আইআইইউসি’র ওরিয়েণ্টেশন অনুষ্ঠানে ভিসি ড. এ.কে.এম আজহারুল ইসলাম
বিশ্ববিদ্যালয়ে এমন নাগরিক গড়ে তোলা প্রয়োজন
যাদের দ্বারা দেশ ও জাতি ক্ষতিগ্রস্ত হবেনা

আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি) এর ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ.কে.এম আজহারুল ইসলাম বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে এমন নাগরিক গড়ে তোলা প্রয়োজন যাদের দ্বারা দেশ ও জাতি ক্ষতিগ্রস্ত হবেনা। তিনি আরও বলেন, ছাত্রদের অর্জিত শিক্ষা দেশ ও জাতির কল্যাণে নিবেদিত হওয়া প্রয়োজন।

আজ সোমবার সকালে কুমিরাস্থ স্থায়ী ক্যাম্পাসে আইআইইউসি‘র স্টুডেন্ট এ্যাফেয়ার্স ডিভিশন (স্ট্যাড) আয়োজিত      শরৎকালীন সেমিস্টার-২০১৪-এর নবাগত ছাত্রদের ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি‘র ভাইস চ্যান্সেলর এ অভিমত ব্যক্ত করেন। আইআইইউসি‘র প্রো ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. আবু বকর রফীকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, আইআইইউসি’র বোর্ড অব ট্রাস্টীজের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও চেয়ারম্যান ফিন্যান্স কমিটি প্রফেসর আহসান উল্লাহ ভূঁইয়া এবং আইইউসি ট্রাস্টের ভাইস চেয়ারম্যান ও অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ড. কাজী দ্বীন মুহাম্মদ। মুনাজাত পরিচালনা করেন আইইউসি ট্রাস্টের প্রবীণ প্রতিষ্ঠাতা সদস্য মাওলানা মুমিনুল হক চৌধুরী। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, আইআইইউসি‘র বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মোঃ দেলাওয়ার হোসাইন, শরী‘য়াহ অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. গিয়াসউদ্দীন হাফিজ, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. ফরিদ আহমদ সোবহানী, ফিমেল ক্যাম্পাস চীফ-ইনচার্জ মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান এবং ছাত্রদের পক্ষে মাহমুদ উদ্দিন মামুন। স্বাগতঃ বক্তব্য রাখেন স্টুডেন্ট এ্যাফেয়ার্স ডিভিশনের (স্ট্যাড) ভারপ্রাপ্ত পরিচালক মোহাম্মদ মামুনুর রশীদ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন স্ট্যাড এর অতিরিক্ত পরিচালক চৌধুরী গোলাম মাওলা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি’র ভিসি প্রফেসর ড. এ.কে.এম আজহারুল ইসলাম বলেন,  বিশ্বের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে তিন-চারদিন ব্যাপী ওরিণ্টেশন প্রোগ্রাম হয়। তাতে আণবিক বোমার ভয়াবহতা নিয়েও আলোচনা করা হয়। আমাদের দেশের শিক্ষাঙ্গনগুলোতেও চাপাতির কোপ আর বন্দুকের গুলির ছড়াছড়ি। এসবের মূল কারণ চিহ্নিত করে সচেতনতা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। এ প্রসঙ্গে তিনি আইআইইউসি চাপাতির কোপ ও বন্দুকের গুলি থেকে মুক্ত রয়েছে বলে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, ছাত্রদের এমনভাবে শিক্ষার্জন করা উচিত যাতে সৎ, যোগ্য ও অনুকরণীয় হওয়া যায় এবং যারা দেশ ও জাতির সেবা করবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি’র আইআইইউসি’র বোর্ড অব ট্রাস্টীজের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান প্রফেসর আহসান উল্লাহ ভূঁইয়া বলেন, একটা স্বপ্ন নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলা হয়েছে। সেই স্বপেনর ফসল পেতে শুরু করেছি। এখাানে নৈতিকতা ও আধুনিকতার সমন্বয়ে যে শিক্ষা প্রদান করা হয় তাতে অনেকেই আকৃষ্ট হচ্ছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আইইউসি ট্রাস্টের ভাইস চেয়ারম্যান ড. কাজী দ্বীন মুহাম্মদ বলেন, আইআইইউসি প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য সৎ ও মহৎ ছিল। তাই এই বিশ্ববিদ্যালয় উত্তরোত্তর অগ্রগতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি বলেন, বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় হওয়া সত্তেও আইআইইউসি থেকে উচ্চ শিক্ষার্থে বৃত্তি দিয়ে যে অধিক শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রী পাঠানো হয় তার নজির সরকারী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেও নেই।

সভাপতির বক্তব্যে আইআইইউসি‘র প্রো ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. আবু বকর রফীক বলেন, আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম থেকে সতের হাজার গ্র্যাজুয়েট বের হয়েছে। বর্তমানে ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা তের হাজার। আইআইইউসি-কে জ্ঞান-বৃক্ষের সাথে তুলনা করে ছাত্র-ছাত্রীরা এর সুমিষ্ট ফল বলে তিনি উল্লেখ করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

(মোসতাক খন্দকার)
সহকারী পরিচালক, জনসংযোগ
আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম