আইআইইউসি’র সার্টিফিকেট প্রোগ্রামের সমাপনী অনুষ্ঠান

আইআইইউসি’র সার্টিফিকেট প্রোগ্রামের সমাপনী অনুষ্ঠানে ভিসি ড. আজহার শ্বাশ্বত মূল্যবোধের চর্চা জ্ঞান-বিজ্ঞানের  গবেষণার বহুমাত্রিক দ্বার উন্মোচন করেছে

আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি)-এর ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড.এ.কে.এম. আজহারুলইসলাম বলেছেন, শ্বাশ্বত মূল্যবোধের চর্চা জ্ঞান-বিজ্ঞানের গবেষণার বহুমাত্রিক দ্বার উন্মোচন করেছে। গবেষণার আরও নতুন নতুন ক্ষেত্র তৈরী করার উপর গুরুত্ব আরোপ করে তিনি বলেন, একাগ্রতা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে গেলে জাতি হিসাবে আমরা আমাদের হারানো গৌরব আবার ফিরে পাবো।

আজ মঙ্গলবার আইআইইউসি’র সম্মেলন কক্ষে আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি)-এর গবেষণা ও প্রকাশনা কেন্দ্র এবং আইএসএসএস-এর যৌথ আয়োজনে “ইন্টারডিসিপ্লিনারী সায়েন্স এণ্ড সোসাইটি” শীর্ষক সপ্তাহব্যাপী সার্টিফিকেট প্রোগ্রামের সমাপনী ও সনদ বিতরন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রফেসর ড. এ.কে.এম. আজহারুল ইসলাম এ অভিমত ব্যক্ত করেন। আইআইইউসি গবেষণা ও প্রকাশনা কেন্দ্রের সেক্রেটারী এবং ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. ফরিদ আহমদ সোবহানীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে ‘কম্পারেটিভ ইসলামিক এপিসটিমোলজি ইন সোশিও-সায়েণ্টেফিক থট’ শীর্ষক সপ্তাহব্যাপী কর্মশালার মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন ওমানের সুলতান কাবুস ইউনিভার্সিটির অর্থনীতি বিভাগের প্রফেসর ড. মাসুদুল আলম চৌধুরী এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রফেসর ড. মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন  বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. আবু বকর রফীক এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার ও ঢাকা ক্যাম্পাসের চীফ প্রফেসর মোহাম্মদ হারুন-অর-রশিদ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালন করেন স্টুডেন্ট এফেয়ার্স ডিভিশনের ডেপুটি ডিরেক্টর চৌধুরী গোলাম মাওলা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রফেসর ড. এ.কে. এম. আজহারুল ইসলাম বলেন, মানুষের কল্যাণেই যে কোন গবেষণা কাজ পরিচালিত হওয়া প্রয়োজন। জ্ঞান অন্বেষণে আমরা যদি কোরআনের নির্দেশনাকে পাথেয় করি তাহলে মানবকল্যাণ সুনিশ্চিত হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

কর্মশালার প্রশিক্ষক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন বলেন, বাংলাদেশে জ্ঞান চর্চায় তাওহীদি চিন্তা ও গবেষনার মাধ্যমে যে শিক্ষা বিপ্লব শুরু হয়েছে তার একটি ক্ষুদ্র প্রয়াস এই কর্মশালা। তিনি উল্লেখ করেন, ইন্দোনেশিয়া- মালয়েশিয়ায় এই তাওহীদি এপিস্টেমোলজির উপর বর্তমানে বহু শিক্ষার্থী এম.ফিল, পিএইচ.ডি গবেষণা করছে। বিষয়টি মধ্যপ্রাচ্যে এখন দারুন প্রসার পেয়েছে।

প্রধান অতিথি অনুষ্ঠান শেষে অংশগ্রহণকারীদের সনদ বিতরন করেন। উল্লেখ্য যে, কর্মশালায় এসাইনম্যান্ট অনুসারে তিনটি পুরস্কারও প্রদান করা হয়, এতে প্রথম হন স্টুডেন্ট এফেয়ার্স ডিভিশনের ডেপুটি ডিরেক্টর চৌধুরী গোলাম মাওলা, দ্বিতীয় হন ফার্মেসী বিভাগের এসোসিয়েট প্রফেসর মোহাম্মদ আকতার সাঈদ এবং তৃতীয় হন ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের এসোসিয়েট প্রফেসর সিরাজুল ইসলাম ।  প্রেস বিজ্ঞপ্তি

(মোসতাক খন্দকার)
জনসংযোগ কর্মকর্তা
আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম