আইআইইউসি‘র বিশ্ব পরিবেশ দিবস উদযাপন অনুষ্ঠানে ড. এ.কে.এম আজহারুল ইসলাম

আইআইইউসি‘র বিশ্ব পরিবেশ দিবস উদযাপন অনুষ্ঠানে ড. এ.কে.এম আজহারুল ইসলাম

বৃক্ষ কেবল পরিবেশ বান্ধব নয়, জীবন-বান্ধবও

আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি) এর ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ.কে.এম আজহারুল ইসলাম বলেছেন, বৃক্ষ মানুষের জন্য সম্পদ। বৃক্ষ কেবল পরিবেশ বান্ধব নয়, জীবন-বান্ধবও বলা চলে।

আজ শুক্রবার সকালে কুমিরাস্থ স্থায়ী ক্যাম্পাসে বিশ্ব পরিবেশ দিবস উদযাপন উপলক্ষে আইআইইউসি আয়োজিত বৃক্ষরোপণ কর্মসূচীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রফেসর ড. এ.কে.এম আজহারুল ইসলাম এ অভিমত ব্যক্ত করেন। স্থায়ী ক্যাম্পাস চীফ প্রফেসর ড. মোঃ দেলাওয়ার হোসাইনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে বিশেষ অতিথি ছিলেন আইআইইউসি‘র প্রো ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. আবু বকর রফীক। অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন আইইউসি ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য মাওলানা মুমিনুল হক চৌধুরী, আইআইইউসি‘র ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. ফরিদ আহমদ সোবহানী, স্থায়ী ক্যাম্পাসের ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের সমন্বয়ক মুহাম্মদ ইউনুস, উপ পরিচালক কবি চৌধুরী গোলাম মাওলা, আইআইইউসি‘র ছাত্র মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দীন এবং স্বাগতঃ বক্তব্য রাখেন বৃক্ষরোপন কর্মসূচীর আহ্বায়ক প্রফেসর ড. শেখ সিরাজুল ইসলাম। উল্লেখ্য বৃক্ষরোপণে প্রশংসনীয় অবদান রাখার জন্যে আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম সারা দেশে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে দ্বিতীয় স্থানের মর্যাদা অর্জন করে। এ জন্যে এই বিশ্ববিদ্যালয়কে ‘ বৃক্ষরোপণে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার ২০১৩’ প্রদান করা হয়। এই বিশেষ কৃতিত্বের জন্য অনুষ্ঠানের অতিথি বক্তাগণ বৃক্ষরোপন কর্মসূচীর আহ্বায়ক প্রফেসর ড. শেখ সিরাজুল ইসলাম এবং তাঁর সহযোগী বাগান-মালিদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ.কে.এম আজহারুল ইসলাম বলেন, মানুষে-মানুষে শত্র“তা থাকলেও বৃক্ষ মানুষের বন্ধু। বৃক্ষ অক্সিজেন সরবরাহকারী, বৃক্ষ পরিশোধনের কাজ করে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রো ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. আবু বকর রফীক বলেন, বিশ্ব পরিবেশ দিবস ঘোষিত হওয়ার অনেক আগে থেকেই আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম এ নিয়ে চিন্তা ও কাজ করে আসছে। পত্র-পল্লব-ফুল-ফলে সুশোভিত আইআইইউসি ক্যাম্পাস তার সাক্ষ্য বহন করছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, বেহেস্তের যে চিত্র আল কুর’আনে অংকিত হয়েছে তা হচ্ছে এমন এক পরিবেশ যার তলদেশ দিয়ে স্রোতস্বিনী প্রবাহিত, নানাবিধ ছায়াদানকারী ফলবৃক্ষ সুশোভিত। যেখানে থোকায় থোকায় ফল ঝুলে আছে। বৃক্ষের নানাবিধ উপকারিতা উপলব্ধিতে আনলে স্রষ্ট্রার প্রতি আনুগত্য বাড়বে। আল কুর’আনের ভাষায় তরুলতাহীন জমি হচ্ছে মৃত। আর আল্লাহর রসূল বৃক্ষরোপনকে অত্যধিক গুরুত্ব দিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, আমরা এমন এক রসূলের (সঃ) উম্মত যার শিক্ষা জীবনের সর্বক্ষেত্রে সম্প্রসারিত।

আলোচনা শেষে আইআইইউসি‘র শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও ছাত্রদের একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে। ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ.কে.এম আজহারুল ইসলাম একটি হিমসাগর আম গাছ রোপণ করে কর্মসূচীর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। উল্লেখ্য এ পর্যন্ত কুমিরাস্থ স্থায়ী ক্যাম্পাসে সতের হাজার গাছ লাগানো হয়েছে।

(মোসতাক খন্দকার)
জনসংযোগ কর্মকর্তা
আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম