আইআইইউসি’র ওরিয়েণ্টেশন(ছাত্রী) অনুষ্ঠানে ড. এ.কে.এম আজহারুল ইসলাম


আইআইইউসি’র ওরিয়েণ্টেশন অনুষ্ঠানে ড. এ.কে.এম আজহারুল ইসলাম
মানুষের অর্জিত সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ শিক্ষা
যা কেউ কখনও ছিনিয়ে নিতে পারেনা

আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি) এর ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ.কে.এম আজহারুল ইসলাম বলেছেন, মানুষের অর্জিত সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ শিক্ষা তিনি শিক্ষার্জনের উপর গুরুত্বারোপ করে আরও বলেন, মানুষের অর্জিত অর্থ ছিনিয়ে নেয়া যায়, কিন্তু শিক্ষা কখনও কেউ ছিনিয়ে নিতে পারে না।

আজ শনিবার সকালে কুমিরাস্থ স্থায়ী ক্যাম্পাসে আইআইইউসি‘র স্টুডেন্ট এ্যাফেয়ার্স ডিভিশন (স্ট্যাড) আয়োজিত      শরৎকালীন সেমিস্টার-২০১৪-এর নবাগত ছাত্রীদের ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি‘র ভাইস চ্যান্সেলর এ অভিমত ব্যক্ত করেন। আইআইইউসি‘র প্রো ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. আবু বকর রফীকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, আইআইইউসি’র প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও চেয়ারম্যান ফিন্যান্স কমিটি প্রফেসর আহসান উল্লাহ ভূঁইয়া। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, আইআইইউসি‘র বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মোঃ দেলাওয়ার হোসাইন, শরী‘য়াহ অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. গিয়াসউদ্দীন হাফিজ, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. ফরিদ আহমদ সোবহানী, ফিমেল ক্যাম্পাস চীফ-ইনচার্জ মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান এবং ছাত্রীদের পক্ষে কামরুন নাহার। স্বাগতঃ বক্তব্য রাখেন স্টুডেন্ট এ্যাফেয়ার্স ডিভিশনের (স্ট্যাড) ভারপ্রাপ্ত পরিচালক মোহাম্মদ মামুনুর রশীদ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন স্ট্যাড এর অতিরিক্ত পরিচালক চৌধুরী গোলাম মাওলা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি’র ভিসি প্রফেসর ড. এ.কে.এম আজহারুল ইসলাম বলেন,  আইআইইউসি সেশন জ্যামের অভিশাপমুক্ত। এই বিশ্ববিদ্যালয় সন্ত্রাসমুক্ত। নিরাপদে নির্বিঘেœ শিক্ষা প্রদান করার জন্য আইআইইউসি ছাত্রীদের পৃথক একাডেমিক বিল্ডিং করেছে। তিনি বলেন, শিক্ষার আলোকে নৈতিক চরিত্র উন্নত করার জন্য সবার আগে প্রয়োজন আন্তরিকতা। আভিভাবকরা যে স্বপ্ন নিয়ে সন্তানদের বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠিয়েছে সে স্বপ্ন পূরণ করার জন্য তিনি ছাত্রীদের প্রতি আহ্বান জানান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি’র প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও চেয়ারম্যান, ফিন্যান্স কমিটি প্রফেসর আহসান উল্লাহ ভূঁইয়া বলেন, প্রতিষ্ঠান বাছাই একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় উল্লেখ করে বলেন, উচ্চ শিক্ষার জন্য আইআইইউসি-কে বেছে নেয়া চমৎকার সিদ্ধান্ত। কারণ বৈশিষ্ট্যগত কারণে আইআইইউসি একটি ব্যতিক্রমধর্মী বিশ্ববিদ্যালয়। দেশের শিক্ষা জগতে একটা নতুন ধারা চালু করার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে আইআইইউসি। বাণিজ্য কিংবা মুনাফা করার জন্যে এই বিশ্ববিদ্যালয়  গড়ে তোলা হয় নি। তিনি ছাত্রদের আদর্শ নাগরিক হিসাবে গড়ে উঠে দেশের, সমাজের, মা-বাবার, আইআইইউসি‘র মান রক্ষা করার এবং অবদান রাখার আহ্বান জানান।

সভাপতির বক্তব্যে আইআইইউসি‘র প্রো ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. আবু বকর রফীক বলেন, আমাদের মিশন হচ্ছে আমাদের গৌরবময় অতীত ইতিহাসকে পুনরুজ্জীবিত করা, ভিশন হলো  আইআইইউসি-কে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সেণ্টার অব এক্সিলেন্স হিসেবে গড়ে তোলা আর অবজেক্টিভ্স হলো এমন একদল প্রজন্ম সৃষ্টি করা যারা উচ্চতর জ্ঞান-বিজ্ঞানে সমৃদ্ধ হবে এবং উন্নততর নৈতিক বৈশিষ্ট্যে অলংকৃত হবে। সমন্বিত শিক্ষা বাস্তবায়নে এবং সেশন জটবিহীন শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে আইআইইউসি সফল হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

(মোসতাক খন্দকার)
সহকারী পরিচালক, জনসংযোগ
আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম